নিরল বাদলে একলা মনপাখি

এই নিরল ধারাপাত একটানা প্রপাতে
কী আশ্চর্য চাপা মূক!
আলগোছে ভিজে যায় নির্মম এ শহর
আর ভিজে তোমায় চেয়ে কেবল বঞ্চনা চুমে
উদাসীন কোনো এক নিঃসঙ্গ বুক।
এই নিরেট যন্ত্রণা অভিমানের জল পেয়ে
কী অদ্ভুত কাতর আর্দ্র!
যোজন যোজন দূরে, আয়ত চোখের তপ্ত নীড়ে
তাকেও কি ছুঁয়েছে এই অবুঝ বেদনার্ত?
এই রোদনের একলা বাদল,
কেন বাজাও মন কেমনের চাপা মাদল?
বুক ভাঙে, পাঁজর ভাঙে
আর ভাঙে মনপাখি নিষেধের যত আগল!

মন ভালো নেই আমার

মন ভালো নেই আমার
মিলন-মেলা যে ভেঙ্গে গেল।
তিলে তিলে গড়া ঠাসবুনোটের বাঁধন
আজ নিমেষে গুঁড়িয়ে গেল!

রুদ্ধশ্বাসের ক্রুর নীরবতা
অস্বস্ত ছন্দে বহমান।
বুক ভাঙার তীব্র ব্যথা
ফেনায় মনো-নদীর মোহনায়।
আজ পূর্ণতা পেল অগোচরে জমা
অন্তর্লীন যত অযাচ্য শূন্যতা!

আমি নির্বাক হয়ে শুধু চেয়েই রই।
পাড় ভাঙা নদীর মতো
বিনাশের আদিম উল্লাস,
এতটুকু ছোঁয় না আমায়।
আমি কান পেতে শুনি
ভাঙনের নিগুঢ় ধ্বনি।
আস্তাকুঁড়ে সহসা ফেলে দেয়া
স্মৃতির মালাগুলি কেবলই হাতড়ে ফিরি।

মন ভালো নেই যে আমার।
মেলা শেষের শশ্মান-নৈঃশব্দে
আমি আজ স্তব্ধ।
কেঁদে কেঁদে ডেকে চলে স্মৃতির পাপিয়া
ফিরে পেতে চায়
হারিয়ে ফেলা যত অবুঝ স্বপ্ন।

মন ভালো নেই আমার…

সব বদলে যায় না!

বদলায় মানুষ, বদলায় জীবন।
বদলে যায় জীবনের বাহারি খোলস।
বদলায় ভালোবাসা, বদলায় বাঁচার টুকরো আশা।
আর বদলায় মানুষের মুখোশ!

এত কিছু বদলের ভীড়ে,
নিজেরে খুঁজি দল বদলের ব্যস্ত তীরে।
শুনি কেবল ব্যর্থতার অদ্ভুত গুঞ্জন!
মন আমার অচিন পাখি,
কেন রাখল পুষে কবেকার প্রাচীন স্মৃতি?
ঠিক বহুকাল আগেও ছিল যেমন!

বদলে যায় পৃথিবী, বদলে যায় সময়।
শুধু আমিই ভুলে যাই কীভাবে বদলে যেতে হয়।
রয়ে যাই অনড়, দাঁড়িয়ে থাকি এক ঠায়
আঃ, আমি ভুলে যাই কীভাবে অমানুষ হতে হয়!

প্রথম প্রকাশঃ ২০০৬

তুমি বিনা

তুমি বিনা লাগে না কিছুতে মন
তুমি হীনা সব তামাদি
তুমি বিনা শুধু নির্জলা বিকর্ষণ!!

যখন আমি পাই না কোথাও তোমায়,
গেঁথে চলো মৌনি-মালা, তখন
কিছুই হায়, এ মন না ভোলায়!

তুমি বিনা রং ফোটে না আকাশে
তুমি হীনা গোলমাল পাখি-ঠোঁটে
তুমি বিনা উদোম বিতৃষ্ণা হৃদ-সকাশে!

তখনো আমি খুঁজি তারে বারে বারে
কেবলি চাই উতকন্ঠা ভরে
যদি আসো মিছে অভিমান ভুলে?

তুমি বিনা ভালো লাগে না জীবন
তুমি হীনা সব বিবাগি
তুমি বিনা শুধু নির্মায়িক জ্বালাতন!