অনিকেত

আমি তোমাদেরই একজন। মিশে থাকি তোমাদের
হাসি-কান্না, দুঃখ-অভিমানে, এবং শোরগোলে।
কিংবা হয়তো আমি তোমাদের কেউ নই; ছিলামই না কখনো!
থাকিনি কখনো তোমাদের আটপৌরে জীবনে – স্বাভাবিক ডামাডোলে।
আমি অদৃশ্য, অস্পৃশ্য – ধরাছোঁয়ার বাইরে। কখনো আসিনি
তোমাদের অমলিন স্পন্দিত লাইম-লাইটে! কী আর হবে এসে?
কিংবা হয়তো মিশে গেছি তোমাদের আত্মায়, বোধের নিগূঢ় মূলে
তোমাদের অজানিতে, বন্ধুতার নিরুচ্চার আপন পাকচক্রে।
আমি আসলেই জানি না আমি কে? কে আমি? অথবা, কে তোমরা?
কুহক এ জীবন, বন্ধনের লুব্ধক স্বপ্নে আমূল বিভোর
অথচ জানে না কোথায় পথের শুরু –
কোথায় জমেছিলো অযাচ্য পথশ্রমের নিদারুণ হঠকারি ধুলো!
আমি তোমাদের হয়েও কেউ নই – নেই আমার কোনো ঠিকানা!
যাপিত জীবন চলছে এক মিছে সংসক্তির ছন্দে – হয়তো এটাই দস্তুর।
আমি উদাসীন, আমার নেই কোনো বাঁধনের জানা সীমানা।
আমি বেভুল পথিক। জানি না তবু কেন পথের জনারণ্যে
সুচিসম ভালোবাসাগুলো নেই কুড়িয়ে – আপ্লুত আবেগে!
আমি দ্বিধান্বিত ব্যাকুল, তোমাদের ভালোবাসায় কেন
বারে বারে, কারণে অকারণে ভাসে বুকের দীর্ঘশ্বাসি দু’কুল?
আমি উদাসীন, আমি তো কারুর নই, এ ভালোবাসা নিতান্ত অনভিপ্রেত!
জেনেও কেন ভুলে যাইঃ আমি উদাসীন – যাবজ্জীবনের অনিকেত!