একটি বর্ষণমুখর উতলা সন্ধ্যায়…

মেঘমেদুর সন্ধ্যা;
জানালার ঘষা কাচে হঠাৎ দুদ্দাড়
এলোমেলো অভিমানের ফোঁটা!
আনমনে তাকিয়েই স্রেফ
অভিনিবিষ্ট হয়ে যাই…
কিছু কিছু সন্ধ্যা
কেমন অদ্ভুত জমায় অন্তর্লীন
ব্যথার নিরুচ্চার পাহাড়;
ঘনায়মান আঁধারে সঙ্গোপন মিশছে
মনোমেঘের ভার।
আমি নির্বাক চেয়ে রই।

কে জানে কেন
আকাশের বেদনায় সতত মিল পাই যেন!
মসী-কৃষ্ণ মেঘের দেহরেখা ছুঁয়ে
হাসছে দিনের মলিন শেষ আলোটুকু।
কেন জানি কেন
নির্নিমেষ ধরি চোখের তারায়
সেই আলোর মন-উদাসী ভাবনাগুলো!

কিছু কিছু বর্ষণমূখর দিনের শেষ
আমায় কেবলি করে উতলা;
আপন শূন্যতার সন্তপ্ত বৃত্তে
খাবি খায় না-পাওয়ার জ্বালা।
বন্ধ জানালায় অভিমানের কবোষ্ণ ফোঁটা
আমায় পাগল করে তোলে।
আর আমি
জগতের তাবৎ দুর্লঙ্ঘ বিধিতে
ছিটোই বিজিতের উপায়ান্তরহীন থুতু!

কিছু কিছু সন্ধ্যা অবিরাম ঝরে
আবার শান্তও হয়ে যায়
শুধু অশান্ত থেকে যায় এ আমি
দীর্ঘ রজনী অপার তৃষ্ণার অঙ্কশায়িনী
পরম প্রযত্নে লালন করে তার রেশ।